আমিনুল ইসলাম, কবি ও গবেষক। তিনি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার পদ্মা-পাঙ্গাশমারী নদীবিধৌত টিকলীচর গ্রামে এক কৃষক পরিবারে ১৯৬৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজকর্ম বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি গভর্নমেন্ট স্টাডিজ বিষয়ে প্রথম শ্রেণীসহ আরেকটি স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। আমিনুল ইসলাম বর্তমান বাংলা সাহিত্যের এক সুপরিচিত কবি। কবি-প্রাবন্ধিক হিসাবে আত্মপ্রকাশ নব্বই দশকে। এ যাবত প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্য ২৫। প্রকাশিত গ্রন্থসমূহ- (ক) কবিতাগ্রন্থ : তন্ত্র থেকে দূরে (২০০২); মহানন্দা এক সোনালি নদীর নাম ২০০৪); শেষ হেমন্তের জোছনা (২০০৮); কুয়াশার বর্ণমালা (২০০৯); পথ বেঁধে দিল বন্ধনহীন গ্রন্থি (২০১০); স্বপ্নের হালখাতা (২০১১); প্রেমসমগ্র-(২০১১); জলচিঠি নীলস্বপ্নের দুয়ার (২০১২); শরতের ট্রেন শ্রাবণের লাগেজ (২০১৩); জোছনার রাত বেদনার বেহালা (২০১৪; তোমার ভালোবাসা আমার সেভিংস অ্যাকউন্ট (২০১৫) প্রণয়ী নদীর কাছে (২০১৬), ভালোবাসার ভূগোলে (২০১৭); অভিবাসী ভালোবাসা (২০১৮), জলের অক্ষরে লেখা প্রেমপত্র (২০১৯) প্রেমিকার জন্য সার-সংক্ষেপ (২০২০)। (খ) ছড়ার বই : দাদুর বাড়ি (২০০৮); ফাগুন এলো শহরে (২০১২); রেলের গাড়ি লিচুর দেশ (২০১৫)। (গ) প্রবন্ধগ্রন্থ : বিশ্বায়ন বাংলা কবিতা ও অন্যান্য প্রবন্ধ-(২০১০)। (ঘ) গবেষণাগ্রন্থ: নজরুল সংগীত : বাণীর বৈভব (২০২১)।

আমিনুল ইসলাম এর লেখা:

কিন্তু তারপরও তোমাকে ভালোবাসার কথা মিথ্যা নয়

মামু, এটা কোনো ধ্বজ্জভঙ্গ রোগ নয় আমি জানি, কীভাবে তার হাটুর নিচখানি তেলতেলে করে দিতে হয় যাতে করে তিনি একলা হাঁটতে গেলে পা পিছলে পড়ে...

শাহরিয়ার ফারজানার সাথে পাল্লা দিয়ে

বই না হয়েও যখন পঠিত আমি এবং এত এত, তখন ধারণা করতে লোভ হয়- তুমিও পড়েছো এ আমাকে। ঠিক বলছি না? হয়তো তোমার জানা আছে;...

আমাদের কবিতায় আমাদের ভাষা সংগ্রামের ছবি

বঙ্গভূমি বা বাংলা-ভূখন্ডের মানুষের প্রধান ভাষা বা মাতৃভাষা বাংলা। তবে বঙ্গ ভূখন্ডেও অন্যান্য ছোটখাটো উপজাতি এবং আদিবাসী আছেন যাদের নিজস্ব মাতৃভাষা ছিল এবং আছে। ঋগ্বেদের...